মঙ্গলবার, ১৮ মে ২০২১, ০১:১৯ পূর্বাহ্ন

সূর্যের অগ্নিঝরা খরতাপ ও ভ্যাপসা গরমে অতিষ্ঠ জনজীবন  ।

সম্পাদক / ৯৬ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৭ এপ্রিল, ২০২১, ১০:৪৫ পূর্বাহ্ন

সূর্যের অগ্নিঝরা খরতাপ ও ভ্যাপসা গরমে অতিষ্ঠ জনজীবন  ।

 

বিশেষ প্রতিবেদকঃ

কুষ্টিয়াতে সূর্যের অগ্নিঝরা খরতাপ ও ভ্যাপসা গরমে অতিষ্ঠ জনজীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে । প্রখর রোদে ঘরে বাইরে কোথাও মিলছে না স্বস্তি। নেই বাতাস, নেই বৃষ্টি, ঘরের বৈদ্যুতিক পাখার বাতাস যেন লু-হাওয়া।

গরমে সবচেয়ে বেশি নাকাল হয়েছে খেটে খাওয়া ও নিম্ন আয়ের মানুষজন। শ্রমজীবী মানুষজন কাজের মধ্যে অতিরিক্ত ঘামে ক্লান্ত হয়ে পড়ছেন। অতিরিক্ত গরমে প্রয়োজনেও ঘর থেকে বের হতে ভয় পাচ্ছে মানুষজন।

বিভিন্ন স্থানে ঘুরে দেখা গেছে একটু স্বস্তির জন্য অনেকেই গাছের তলা কিংবা ঠান্ডা স্থানে বসে সময় কাটাচ্ছেন। তারপরও পানীর সংকটে ভুগছেন জেলার বেশিরভাগ মানুষ। প্রয়োজনে কাঠ ফাটা রৌদে মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে লেবুর শরবত,ঠান্ডা পানীয় ইত্যাদি খেয়ে তৃষ্ণা মিটাতে দেখা যায় অনেককে। আর তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ায় নাজেহাল হয়ে পড়ছেন সাধারণ মানুষ। গরমের কারণে দুপুরের আগেই শহরের বেশিরভাগ এলাকা প্রায় ফাঁকা হয়ে যাচ্ছে। ফ্যানের বাতাসেও গরম অনুভব হওয়ায় বিরক্তিতে ঘরে থাকা মানুষজন। এই গরমে শুধু মানুষই নয়, পশুপাখিদেরও প্রাণ ওষ্ঠাগত।

কোথাও কোথাও একপশলা বৃষ্টি হলেও গরমের তীব্রতা কমেনি। বৃষ্টির প্রতীক্ষায় দিন কাটছে তাদের। শুধু যে কেবল কুষ্টিয়ায় এ অবস্থা তা কিন্ত নয়, সারা দেশের বিভিন্ন স্থানে প্রায় একই অবস্থা বিরাজ করছে।

তবে চিকিৎসকরা দেশে বর্তমান করোনাভাইরাস মহামারির এ প্রতিকূল আবহাওয়ায় সতর্কতার সঙ্গে নিয়ম মেনে খাওয়া দাওয়া করতে পরামর্শ দিয়েছেন। গরমে রোগ বালাই থেকে বাঁচতে রাস্তার পাশে খোলা খাবার এবং অতিরিক্ত ঠান্ডা পানি খাওয়া থেকে বিরত থাকার জন্য বলেছেন চিকিৎসকরা।

খোকসা বাস স্টান্ড এলাকার এক হোটেল শ্রমিক জানান, আমাকে চুলার পাড়ে রান্নার কাজ করতে হয়। একদিকে চুলার আগুনের গরম অন্যদিকে প্রখর রোদে ঘেমে ক্লান্ত হয়ে পড়ছি। ক্লান্তে শরীরে কাজকর্মে অনীহা আসছে। তবুও রোজগারের স্বার্থে কাজ করতে হবে। ক্লান্তি দূর করার জন্য অতিরিক্ত পানি ও স্যালাইন খাচ্ছি।

খোকসার এক কাঁচামাল ব্যবসায়ী জানান, আমি গড়াই নদীর ওপার থেকে খোকসা বাজারে এসেছি কাঁচামাল ক্রয় করতে। আমি বয়স্ক মানুষ। এতোটা পথ তীব্র গরমে পাড়ি দিয়ে শহরে এসে ক্লান্ত হয়ে পড়েছি। তাই গাছের তলায় ছায়ায় বসে একটু জিরিয়ে নিচ্ছি।

খোকসা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাঃ কামরুজ্জামান সোহেল বলেন, করোনার কারনে গরম জনিত রোগের রোগীরা হাসপাতালে আসছে না। গরমে হিট স্ট্রোক রোগীদের জন্য আমাদের প্রস্তুতি নেয়া আছে। তবে মানুষজনের উচিত তীব্র গরমে প্রয়োজন ব্যতিরেকে ঘরের বাহিরে বের না হওয়া। এক্ষেত্রে জনসাধারণের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি প্রয়োজন। তাছাড়াও প্রয়োজনে প্রচন্ড গরমে তরল জাতীয় খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এই চিকিৎসক ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

Archives

MonTueWedThuFriSatSun
     12
17181920212223
24252627282930
31      
   1234
19202122232425
2627282930  
       
22232425262728
293031    
       
       
       
      1
30      
   1234
       
282930    
       
  12345
6789101112
13141516171819
2728293031  
       

এক ক্লিকে বিভাগের খবর
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect. Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.